বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন
  • ৫ ভাদ্র, ১৪২৫
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৪ ডিসেম্বর ২০১৭

জাতীয় অর্থনীতিতে শিল্পখাতের অবদান বাড়াতে শিল্প মন্ত্রণালয় প্রকল্প গ্রহণ করবে


প্রকাশন তারিখ : 2017-12-24

জাতীয় অর্থনীতিতে শিল্পখাতের অবদান আরো বাড়াতে শিল্প মন্ত্রণালয় বড় ধরনের প্রকল্প গ্রহণ করবে। সম্ভাব্য এ প্রকল্পের আওতায় প্রাতিষ্ঠানিক শিল্পখাতের অবদান জোরদার করা হবে।
শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক কর্মশালায় শিল্পসচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ এ কথা জানান। তিনি এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন।
শিল্প সচিব উল্লেখ করেন, এ প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন শিল্পখাতের নিয়ন্ত্রণাধীন অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের সম্ভাবনা ও সমস্যা নিরূপণ করে খাতভিত্তিক দক্ষতা বৃদ্ধি ও শোভন কর্মপরিবেশ উন্নয়নেরও উদ্যোগ নেয়া হবে।
জাতীয় পর্যায়ে অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতে দক্ষতা উন্নয়নের কৌশল নির্ধারণের লক্ষ্যে ‘বাংলাদেশের অপ্রাতিষ্ঠানিক অর্থনীতি : গতিশীল উপাদানগুলোর একীভূতকরণ এবং আইএসআইএসসি’র ভূমিকা শীর্ষক এ কর্মশালা আন্তর্জাতিক শ্রমসংস্থা (আইএলও) এবং ইনফরমাল সেক্টর ইন্ডাস্ট্রি স্কিলস্ কাউন্সিলের (এনএসডিসি) যৌথ উদ্যোগে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
ইনফরমাল সেক্টর ইন্ডাস্ট্রি স্কিলস্ কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মির্জা নূরুল গণি শোভনের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে পৃথকভাবে দু’টি মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইএসআইএসসি’র সদস্য সচিব মোঃ মাহাবুবুল ইসলাম এবং আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার প্রোগ্রাম অফিসার তানজিল আহসান।
উপস্থাপিত প্রবন্ধে বলা হয়েছে, অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের দক্ষতা বাড়ানোর পাশাপাশি ও শোভন কর্মপরিবেশ কৈরী করা গেলে শিল্পখাতে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি, ব্যাপকহারে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি এবং দক্ষ জনশক্তি রপ্তানির মাধ্যমে রেমিট্যান্স প্রবাহ শক্তিশালী হবে।
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে জাতীয় দক্ষতা উন্নয়নের পরিষদ (এনএসডিসি) সচিবালয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম খোরশেদ আলম, এসএমই ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ শফিকুল ইসলাম, আইএলও’র প্রধান কারিগরি পরামর্শক ¯েœহাল সনিজী, সুইস কন্ট্রাকের টিম লিডার মতিউর রহমান ও ইউসেপ বাংলাদেশ’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তাহ্সিনাহ্ আহমেদ বক্তব্য রাখেন।
বাংলাদেশে প্রতিবছর ২০ লাখ তরুণ চাকরি বাজারে প্রবেশ করছে উল্লেখ করে শিল্পসচিব বলেন, এককভাবে সরকারিখাতে এত লোকের কর্মসংস্থান সম্ভব নয়।
সরকারি-বেসরকারি যৌথ উদ্যোগে প্রশিক্ষণের মাধমে তাদের জন্য মানসম্মত কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা সম্ভব বলে তিনি উল্লেখ করেন।
শিল্প সচিব জানান,দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা প্রায় ৬৬ ভাগ শ্রমজীবী মানুষ। এ বিশাল জনগোষ্ঠিকে কারিগরি প্রশিক্ষণের আওতায় এনে কর্মীর হাতিয়ারে পরিণত করারও তাগিদ দেন তিনি। এরফলে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সক্ষমতা কমপক্ষে তিনগুণ বেড়ে যাবে বলে শিল্প সচিব মন্তব্য করেন।
বর্তমানে বাংলাদেশে ১৩ হাজার ১৬৩টি প্রতিষ্ঠান ‘দক্ষতা উন্নয়নে’ কাজ করছে উল্লেখ বক্তারা বলেন, এসব প্রতিষ্ঠানের গুণগত মানোন্নয়নের ব্যবস্থা নেয়া দরকার।